নাটোরে ধানের শীষের প্রচারণায় বাঁধা,  নৌকার কর্মীদের মোটরসাইকেল ভাংচুর

নাটোরঃ নাটোর-৪ (বড়াইগ্রাম-গুরুদাসপুর) আসনে সরকারদলীয় নৌকা প্রতিকের নেতাকর্মীরা ধানের শীষের প্রার্থী আব্দুল আজিজকে দফায় দফায় প্রচারণায় বাঁধা দেয়া ও প্রকাশ্যে ধানের শীষের এলাকার সব পোষ্টার ছিড়ে ফেলায় ক্ষুদ্ধ হয়ে নৌকা প্রতিকের কর্মীদের দুটি মোটরসাইকেল ধানের শীষের কর্মীরা ভাংচুর করেছে। পরে নৌকার কর্মীরা ধানের শীষের নির্বাচনী অফিস ভেঙ্গে দিয়েছে। র‌্যাব ও পুলিশের হস্তক্ষেপে বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানায়, মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে নাটোর-৪ (বড়াইগ্রাম-গুরুদাসপুর) আসনের ধানের শীষের প্রার্থী আব্দুল আজিজ বড়াইগ্রাম উপজেলার ধানাইদহ এলাকায় জনসংযোগে বের হন। এসময় সরকারদলীয় নৌকা প্রতিকের নেতাকর্মীরা মোটর সাইকেল বহর নিয়ে দফায় দফায় তার প্রচারণায় বাঁধা দেয়া শুরু করে। আব্দুল আজিজ এ সময় তার নেতাকর্মীদের নিয়ে উপজেলার মেরীগাছা বাজারে গিয়ে প্রচারণা শুরু করলে নৌকার কর্মীদের মোটরসাইকেল বহর সেখানে গিয়েও কাজে বাঁধা দেয় এবং প্রকাশ্যে ধানের শীষের পোষ্টার ছিড়ে ফেলে। পরে ধানের শীষের প্রার্থী নেতাকর্মীদের নিয়ে নদীর অপরপাশের মনপীরিত বাজারে গিয়ে প্রচারনা শুরু করলে আবার সেখানে নৌকার কর্মীরা মোটরসাইকেল বহর নিয়ে গেলে তাদের ধাওয়া করে ধানের শীষের নেতাকর্মীরা। এ সময় নদীর উপরের ব্রীজের দুপাশে দুইদল অবস্থান নিয়ে ঘন্টাব্যাপী ইট দিয়ে ঢিল ছোড়াছুড়ি করে। পরে বহরের দুটি মোটরসাইকেল ফেলে পালিয়ে গেলে ক্ষুদ্ধ বিএনপি নেতাকর্মীরা আওয়ামী লীগ কর্মীদের ঐ দুটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করেছে। পরে নৌকার কর্মীরা মেরিগাছা বাজারে ফিরে গিয়ে ধানের শীষের নির্বাচনী অফিস ভেঙ্গে দিয়েছে।

ঘটনার পরপরই খবর পেয়ে র‌্যাব ও পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে তাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

বিএনপির প্রার্থী আব্দুল আজিজ অভিযোগ করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে আগে থেকে জানিয়ে মঙ্গলবার সকালে নগর ইউনিয়নে গনসংযোগে গেলে স্থানীয় ইউনিয়ণ পরিষদ চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে তাদের উপরে এই হামলা করা হয়েছে।

বড়াইগ্রাম থানার ওসি দিলীপ কুমার দাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, র‌্যাব বিজিবি ও পুলিশের উপস্থিতির কারনে বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.