জাতিসংঘের প্রতিনিধি দলের বাংলাদেশ সফর সেরা দৃশ্যমান কূটনৈতিক সাফল্য

নাজমুস সাকিব॥প্রথমবারের মত বাংলাদেশ সফর করছে জাতিসংঘের ৫ স্থায়ী সদস্যসহ নিরাপত্তা পরিষদের সকল সদস্য দেশের প্রতিনিধি। এই দলে আছে স্থায়ী সদস্য দেশ চীন, রাশিয়া, ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য। এছাড়া আছে নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য বলিভিয়া, আইভরিকোস্ট, গিনি, ইথিওপিয়া, কাজাখস্তান, কুয়েত, নেদারল্যান্ড, পেরু, পোল্যান্ড ও সুইডেন। শুধু ১৫টি স্থায়ী সদস্য দেশই নয়, সাথে আছে আরও ৬টি দেশের প্রতিনিধিও (বার্বাডোজ, ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো, মিশর, জর্ডান, সুইজারল্যান্ড)। উদ্দেশ্য বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বড় মানবিক বিপর্যয় রোহিঙ্গা সঙ্কটের সমাধান খোঁজা। অভিযুক্ত দেশ মিয়ানমারকে চাপ প্রয়োগের মাধ্যমে বিতাড়িত নাগরিকদের সসম্মানে নিরাপদে নিজ দেশে ফিরিয়ে নেয়ার উপায় বের করার অংশ হিসেবে বাংলাদেশে জাতিসংঘের ২১টি দেশের প্রতিনিধিদের এই উপস্থিতি।
আপাত দৃষ্টিতে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার কোনো কার্যকর উদ্যোগ দৃশ্যমান নয়। শুরু থেকেই দায় স্বীকার না করার কৌশল নেয় মিয়ানমার। উপেক্ষা করে আন্তর্জাতিক। অস্বীকার করে নিপিড়নের দায়। পরে রোহিঙ্গা ইস্যুতে নানা নাটক সাজানোর চেষ্টা চালায়। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় আরসার ’হামলা’, আরসা নেতার ’ভিডিও বার্তা’, অভিযুক্ত কয়েকজন সেনার ’বিচার’, কয়েকজন রোহিঙ্গার মিয়ানমারে ’ফেরত যাওয়া’। এসবের কোনোটাই নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে নিশ্চিত করা যায়নি। তাছাড়া প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গার বাস্তুচ্যুতির প্রেক্ষিতে এগুলো নিতান্তই ঠুনকো।

জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক চাপের প্রেক্ষিতে নানা উদ্যোগ নিয়েও তালবাহানার শেষ নেই মিয়ানমারের। গতবছর ২৮ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সভায় তীব্র সমালোচনার মুখে মিয়ানমারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা উ থুয়াং তুন জানান, ১৯৯২ সালে বাংলাদেশের সাথে করা চুক্তি অনুসারে হবে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন। সেই প্রতিশ্রুতির ৭ মাস পরেও এই সঙ্কট সমাধানে মিয়ানমারের আন্তরিকতার ছিটেফোটারও দেখা মেলেনি।
অক্টোবরে বাংলাদেশের সাথে একটি সমঝোতা স্মারক সই করে মিয়ানমার। যেখানে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে দুদেশ সহযোগিতায় সম্মত হয়। এছাড়া মিয়ানমার অঙ্গীকার করে আর কোনো রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আসবে না। নভেম্বরের ২৩ তারিখে একটি চুক্তি হয়। সেসময় অবশ্য আন্তর্জাতিক মানবাধিকার কর্মীরা চুক্তিতে তৃতীয় পক্ষ না রাখা, নিরাপত্তাসহ স্থিতিশীল পরিবেশ নিশ্চিত করার প্রসঙ্গ না থাকায় উদ্যোগ ফলপ্রসু হওয়া নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেন।
এরপরও বেশ কয়েকবার পল্টি দিয়েছে মিয়ানমার। শর্ত শুধু ১৯৯২ এর চুক্তির আলোকে ফেরত নেয়া হবে, এতেই সীমাবদ্ধ থাকেনি। এরপর ডিসেম্বরে রোহিঙ্গাদের উপর চালানো গণহত্যা ও নিষ্ঠুরতা নিয়ে তীব্র সমালোচনা করে জাতিসংঘের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য রাষ্ট্র (চীন এবং রাশিয়া ব্যতীত)।
চুক্তি অনুসারে এ ২২ জানুয়ারি থেকে ফিরিয়ে নেয়ার কাজ শুরু করার কথা ছিল। শেষ মুহুর্তে এসে বাড়তি শর্ত জুড়ে দেয় মিয়ানমার। ১৬ জানুয়ারি জানায়, পরিবার ভিত্তিক ডাটাবেজ করতে হবে। বাংলাদেশ তাতেও সম্মতি দেয়। পাসপোর্ট বিভাগ সব রোহিঙ্গা নাগরিকের বায়োমেট্রিক রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করলেও সেটা পরিবার ভিত্তিক ছিল না। এরআগে শর্ত ছিল নাগরিকত্বের প্রমাণ থাকা সাপেক্ষে ফিরিয়ে নেয়া হবে (উল্লেখ্য ১৫ অক্টোবর ১৯৮২ সালে নাগরিকত্ব আইন জারির মাধ্যমে নাগরিকত্ব হারায় রোহিঙ্গারা)।
২৩ জানুয়ারি মিয়ানমার অভিযোগ করে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে তারা প্রস্তুত থাকলেও বাংলাদেশের কারণে দেরি হচ্ছে (!)
মিয়ানমারের এই উদ্ধ্যত্বের পেছনে রসদ জুগিয়েছে নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য রাশিয়া ও চীন। তাদের ভেটো দেয়ায় জাতিসংঘে একাধিকবার আটকে গেছে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আনীত প্রস্তাব।
রাশিয়া ও চীন বাদে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সব দেশ রোহিঙ্গা নিপিড়নকে পদ্ধতিগত গণহত্যা বলে মন্তব্য করেছে। এছাড়া জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের প্রধান একে জাতিগত নিধনের টেক্সটবুক উদাহরণ বলেছেন।
বাংলাদেশ তো বটেই বিশে^র বাঘা বাঘা দেশের উদ্বেগ/নিন্দা/প্রতিবাদ/অনুরোধ সবকিছুকে থোড়াই কেয়ার করছে মিয়ানমার। সবার অনুযোগেও কানে তুলো দেয়া রাশিয়া ও চীনসহ জাতিসংঘের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দলের এই সফর তাই গুরুত্বপূর্ণ বাংলাদেশের জন্য। এতে রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের উপর আন্তর্জাতিক চাপ আরও বাড়লো সন্দেহ নেই। শরণার্থীদের দুরবস্থা সরেজমিন পরিদর্শণ শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাতের পর, প্রতিনিধি দলের মিয়ানমার সফর এই ইস্যুতে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ পদক্ষেপ। এটি শুধু জাতিসংঘের সভায় নিন্দা জানানো কিংবা প্রস্তাব উত্থাপনে সীমাবদ্ধ থাকবে না কিংবা নেই তা বলাই বাহুল্য। তাই আমরা আশাবাদী।
এই সফরেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে; এতটা আশা করা যায় না। সহসা কাটবে অচলাবস্থা সে আশাও বাড়াবাড়ি। তবে সমাধানের দ্বার খোলার দারুণ এক সম্ভাবনার কাছাকাছি আসা সম্ভব হয়েছে তা বলাই যায়। জাতিসংঘের উচ্চ পর্যায়ের সবদেশের প্রতিনিধি একসাথে কোনো দেশ সফর কিংবা কোনো এক ইস্যুতে সরব হওয়া ব্যতিক্রম ও বিরল ঘটনা। দেখার বিষয়, সুযোগটা কতটা সাফল্যে পরিণত করতে পারে বাংলাদেশ। বলা যায়, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের এ যাবতকালের সেরা দৃশ্যমান ক’টনৈতিক উদ্যোগ। আশাকরি রোহিঙ্গারা নিরাপদে সসম্মানে নিজ ভূমিতে ফিরে যাওয়ার সুযোগ তৈরির চাবিকাঠির ভূমিকা রাখবে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রতিনিধি দলের এই সফর। ঘুঁচবে অন্ধকার। দেখার বিষয়, সুযোগ কতটা কাজে লাগাতে পারে বাংলাদেশ।
লেখক : সাংবাদিক, চ্যানেল টোয়েন্টিফোর

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.