স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা অন্তরের কান্ড!

নাটোর অফিস॥
নাটোর পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগ সাধারন সম্পাদক মীর নাফিউল ইসলাম অন্তরের বিরুদ্ধে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু রায়হানকে লাঞ্ছিত করাসহ হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। প্রকৌশলী আবু রায়হান সদর থানায় সোমবার রাতে এসংক্রান্ত একটি লিখিত এজাহার দায়ের করেছেন। অভিযুক্ত নাফিউল ইসলাম অন্তর স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুলের ভাগিনা এবং শহরের উত্তর বড়গাছা এলাকার বাসিন্দা প্রথম শ্রেণীর ঠিকাদার ও জেলা আওয়ামীলীগের অর্থ সম্পাদক মীর আমিরুল ইসলাম জাহানের ছেলে।
পুলিশ ও থানায় দায়েরকৃত এজাহার সুত্রে জানাযায়, গত ২৪ মে সকালে নির্বাহী প্রকৌশলী আবু রায়হান সিংড়ায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের অফিস ভবন ও পরিদর্শন বাংলোর মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজ পরিদর্শনে যান। এসময় তিনি বাংলাতো ব্যবহারের জন্য টাইলস নির্বাচন করে কোড নম্বর ঠিকাদার মীর আমিরুল ইসলাম জাহানের ছেলে ও ম্যানেজার রাজীবের নিকট সরবরাহ করেন। ওই দিন দুপুরে ঠিকাদার জাহান ফোন করে নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে দেখা করতে চান। বিকেল ৫টার দিকে ঠিকাদার জাহান, ছেলে অন্তর ও ম্যানেজার রাজীব পানি উন্নয়ন বোর্ড নাটোর অফিসে আসেন। এসময় অন্তর নির্বাহী প্রকৌশলীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। প্রতিবাদ করলে এক হাতে গলা চেপে ধরে অন্য হাতে উপর্যুপরি কিল-ঘুষি মারতে থাকেন। এসময় অফিসের ফাইপত্র তছনছ করে আসবাবপত্র ভাংচুর করা হয়। ঘটনা দেখে অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারিরা ছুটে এসে প্রকৌশলী আবু রায়হানকে রক্ষা করেন। পরে তাকে নাটোর সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। এঘটনায় নির্বাহী প্রকৌশলী আবু রায়হান বাদী হয়ে ওই রাতেই (সোমবার) মীর নাফিউল ইসলাম অন্তরকে আসামি করে সরকারি কাজে বাধা এবং কমকর্তাকে মারধরের অভিযোগে নাটোর সদর থানায় মামলা দায়ের করেন ।
নির্বাহী প্রকৌশলী আবু রায়হান বলেন, ‘পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভবনের টাইলস লাগানোর কাজ করছেন ঠিকাদার আমিরুল ইসলাম জাহান। সেখানে শিডিউল মোতাবেক মানের টাইলস লাগাতে বললে ঠিকাদার তাতে অস্বীকৃতি জানায়। গতকাল সোমবার এসব বিষয়ে অফিসে এসে কথা বলতে চায় ঠিকাদার। এ সময় অকথ্য ভাষায় আমাকে গালিগালাজ করতে থাকেন ঠিকাদার আমিরুল ইসলাম জাহান। এসময় ‘গালিগালাজ না করে ভদ্রভাবে কথা বলতে বললে ঠিকাদারের ছেলে নাফিউল ইসলাম অন্তর উত্তেজিত হয়ে আমাকে কিল-ঘুষি মারতে থাকে। এতে আমার ঠোঁট কেটে যায় এবং হাত, মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাত লাগে। প্রকৌশলী আবু রায়হান অভিযোগ করে বলেন, নাটোরে চাকুরি করলে আমাকে হত্যার হুমকি দিয়ে গেছে অন্তর। আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। ঘটনাসমুহ উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।
অন্তরের বাবা মীর আমিরুল ইসলাম জাহান বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা টেন্ডার নিয়ে অনিয়ম সহ অনেক সমস্যা করত। অনেকেই তাদের ওপর ক্ষুদ্ধ। এসব সমস্যা থেকে রক্ষার জন্য তারাই আমার ছেলেকে ডেকে নিয়ে যায়। আমার ছেলেকে তারা বিভিন্ন সময় কাজ দেওয়ার কথা বলেও নির্বাহী প্রকৌশলীর যোগসাজসে অন্যদের কাজ দিয়ে দিয়েছে। গতকালও কাজের কথা নিয়েই এক পর্যায়ে বাকবিতান্ড হয়। কোন মারপিটের ঘটনা ঘটেনি। তবে নির্বাহী প্রকৌশলী ও আমার ছেলে দুজনই উত্তেজিত হয়ে কথা বলতে গিয়ে চেয়ার থেকে পরে যান। থানায় যে অভিযোগ করা হয়েছে তা মিথ্যা বানোয়াট। প্রকৌশলী তার অপকর্ম ঢাকতে আমার ছেলের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনেছেন।
পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা সাংবাদিকদের বলেন, সরকারী কাজে বাধা প্রদান, মারধর এবং হত্যার হুমকির কথা উল্লেখ করে প্রকৌশলী আবু রায়হান স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা অন্তরের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। কর্তব্যরত অবস্থায় সরকারি কর্মকর্তার ওপর হামলায় কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *