নাটোরে উত্তরা গণভবনে বানরের আক্রমনে শিশু আহত; চিকিৎসা মেলেনি। 


নাটোর: নাটোরের উত্তরা গণভবনের চিড়িয়াখানার বানরের কামড়ে হালিমা খাতুন নামে আড়াই বছরের এক শিশু দর্শনার্থী আহত হয়। স্থানীয়ভাবে চিকিৎসার সুযোগ না থাকায় আহত শিশুকে সদর হাসপাতালে নেওয়া হলেও সেখানে চিকিৎসা সেবা মেলেনি। ফলে আহত শিশুকে নিয়ে বাড়ি ফিরে যেতে হয়েছে সজনদের। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার দুপুরে। আহত শিশুর বাড়ি রাজশাহীতে। তার বাবা হাসান আলী।
আহত শিশুর পরিবার ও প্রত্যক্ষদর্শিরা জানায়, রোববার সকালে শিশু হালিমাকে নিয়ে মা-বাবা সহ পরিবারের ক’জন সদস্য নতুন ভাবে সাজানো নাটোরের উত্তরা গণভবন পরিদর্শনে আসেন। দুপুর ১টার দিকে  উত্তরা গণভবনের চিড়িয়াখানা পরিদর্শনের সময় বানর শিশু হালিমাকে বানর কামড় দিলে সে আহত হয়। চিড়িয়াখানার খাঁচার সামনে দাঁড়িয়ে থাকার সময় বানরের বাঁদরামি দেখে শিশু হালিমা তার হাত খাঁচার ভিতর ঢুকিয়ে দিয়ে বানরকে ডাকতে থাকে। ঠিক ওই মহুর্তে বানরটি ছুটে এসে শিশুটির হাতে কামর বসিয়ে টেনে ধরে। এসময় সজন সহ উপস্থিত দর্শনার্থীরা ছুটে গিয়ে শিশুটিকে রক্ষা করে।
এদিকে আহত শিশুকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য ছোটাছুটি করতে থাকেন। এসময় স্থানীয়দের পরামর্শে শিশুটিকে প্রায় ৫ কিলোমিটার দুরে সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্মরতরা চিকিৎসার সময় অতিবাহিত হওয়ার কথা বলে চিৎিসা না দিয়ে পরদিন শিশুটিকে হাসপাতালে আনার পরামর্শ দেন। ফলে চিকিৎসা না পেয়ে তারা ফিরে যান।
শিশুটির কাজিন বড়াইগ্রামের গণমাধ্যম কর্মী রাজু আহমেদ জানান, বানরের আক্রমনে শিশুর বাম হাতে বড় ধরনের ক্ষত হয়েছে। হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নেওয়া হলেও সেখানে চিকিৎসা মেলেনি। সেখানথেকে বলা হয়,প্রতিদিন যিনি ভ্যাকসিন দিয়ে তাকেন তিনি ১টারসময় দায়িত্ব শেষে চলে যান। তাই পরদিন সকালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে বিদায় করা হয়।
হাসপাতালের  আবাসিক মেডিককেল অফিসার (আরএমও) ডাঃ মাহবুব হোসেন জানান, শিশুটিকে বেলা তিনটার দিকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। কিন্তু ওই সময় ভ্যাকসিন দেয়া হয়না। তবে শিশুর হাতের ক্ষ বেশী ছিল। তাই শিশুটিকে নিয়ে পরদিন সকালে আসতে বলা হলেও প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
সিভিল সার্জন ডাঃ আজিজুল হক বলেন,তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন তাই ঘটনাটি সম্পর্কে সঠিক কিছু জানেনা। তবে হাসপাতালে জনবল সংকট প্রকট এবং ভ্যাকসিন দেওয়ার সময় অতিবাহিত হওয়ায় শিশুটিকে পরদিন নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। তিনি  ঢাকা থেকে ফিরে প্রকৃত ঘটনা জেনে ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।
নেজারত ডেপুটি কালেক্টরেট (এনডিসি) অনিন্দ্য মন্ডল বলেন,শিশুটি খাঁচার ভিতরে হাত ঢুকিয়ে বানরকে খাবার দিচ্ছিল। চিড়িয়া খানার সামনে এসব বিষয়ে সতর্কীকরন নোটিশ টানানো রয়েছে। ওই সব নোটিশ উপেক্ষা করে কেউ কেউ এমন ভুল করে বিপদের মুখে পড়েন। বিষয়টি সম্পর্কে দর্শনার্থীদের প্রায়ই সর্তক করা হয়।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.