নাটোর-নলডাঙ্গা সড়কে জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগ চরমে!

নিজস্ব প্রতিবেদক, নলডাঙ্গা, নাটোরঃ নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার নাটোর-নলডাঙ্গা সড়কের সোনালী ব্যাংকের সামনের প্রধান পাকা সড়কটি খানা-খন্দে ভরা। সামান্য বৃষ্টিতে প্রায় হাঁটু পরিমাণ পানি জমে এ সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। কাঁদা আর ঘোলা পানিতে একাকার হয়ে যায় প্রায় পাঁচশত ফুট পথটি। ফলে নলডাঙ্গা পৌরসভা কার্যালয় হতে নলডাঙ্গা থানা ও সোনালী ব্যাংকের সামনে দিয়ে উপজেলা মোড় এলাকার এ পথে নাটোর জেলা সদরে চলাচল করতে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন শত শত যানবাহনসহ কয়েক হাজার মানুষ।

জানা যায়, সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে এই রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে মেরামত না করায় নলডাঙ্গা উপজেলা মোড় হতে পৌরসভা কার্যালয় পর্যন্ত বড় বড় খানা-খন্দের সৃষ্টি হয়েছে। এই বড় বড় খানা-খন্দ ও ভাঙ্গন গুলো অস্থায়ী ভিত্তিতে মেরামত করার জন্য মাঝের মধ্যে কিছু ইট দিয়ে খানা-খন্দ ও ভাঙ্গন গুলো ভরাট করার ফলে রাস্তাটি আরো বেশি খারাপ হচ্ছে এবং চলাচলের অনুপযোগী হয়ে উঠছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ী সজল ও সাব্বির অভিযোগ করেন, সামান্য বৃষ্টি হলেই সোনালী ব্যাংক এলাকায় এক হাটুঁ পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ফলে এলাকার ব্যবসায়ীরা সুষ্ঠুভাবে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারছে না। জরুরী ভিত্তিতে ড্রেন নির্মাণ করে সড়কে জলাবদ্ধতা নিরসন করা প্রয়োজন।

পথে চলাচলকারী ভ্যান ও ইজিবাইক চালকদের অভিযোগ, বড় বড় খানা-খন্দের কারণে এই রাস্তা দিয়ে গাড়ি চালাতে খুবই দুর্ভোগ হতে হচ্ছে। ভাঙ্গনে গাড়িগুলো উল্টে গিয়ে প্রায়ই দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। রাস্তাটি এতই খারাপ এখান দিয়ে গাড়ি চালাতে ইচ্ছা করে না।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, সড়কের দুই পাশের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান বা দোকানপাট উঁচু হওয়ায়  এবং সড়কটি নিচু হওয়ায় সামান্য বৃষ্টির পানি জমে এখানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি যার ফল সুষ্ঠুভাবে ব্যবসায় পরিচালনা করা কঠিন হয়ে পড়ছে দিনদিন। জরুরী ভিত্তিতে সড়কটি মেরামত ও ড্রেন নির্মান প্রয়োজন।

নলডাঙ্গা পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র সাহেব আলী বলেন, ‘রাস্তার ধারে বিল্ডিং নির্মাণের সময় গলি না রাখার কারণে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে। তবে দিয়ে ড্রেন নির্মাণ করা হলে জলাবদ্ধতা হবে না। আগামীতে গলি দিয়ে ড্রেন নির্মাণের ব‍্যবস্থা করা হবে।’

Spread the love
  • 159
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    159
    Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *